বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:৫৩ অপরাহ্ন
১৪ মাঘ, ১৪২৭

সংবাদ শিরোনাম:
পেটে বাচ্চাসহ গরু জবাই, অতঃপর যা ঘটলো বরিশালে করোনার টিকা পৌঁছাবে শুক্রবার বরিশালে ১শ’ ৪২ মন জাটকা ইলিশ জব্দ পকেটে সাংবাদিকতার আইডি কার্ড, অথচ ওরা ডাকাত মায়ের সাথে অভিমান করে উজিরপুরে কলেজছাত্রীর আত্মহত্যা জমকালো আয়োজনে এশিয়ান টেলিভিশনের ৮ম বর্ষপূর্তি পালিত রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর সামসুদ্দীনের দাফন ডিআরইউর ক্যান্টিনে মিলবে সকালের নাস্তা সাংবাদিক পথিক সাহার দশম মৃত্যুবার্ষিকী শুক্রবার আফ্রিকায় বাংলাদেশি যুবককে গুলি করে হত্যা নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে পুলিশ কাউকে ছাড় দেবে না বাংলাদেশে নতুন ভ্যারিয়েন্টে এফএইচডি প্লাস ডিসপ্লের রেডমি ৯ ভোলাসহ ৯ জেলায় নতুন ডিসি গৌরীপুরে কাউন্সিলর প্রার্থীর নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা ও ভাংচুর সুনামগঞ্জে নদীর তীর কেটে ইট তৈরী করছে আজিজ ব্রিক, হুমকির মুখে কয়েক গ্রাম আর্থিক সহায়তা পেল আগৈলঝাড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত দুই শিক্ষকের পরিবার আগৈলঝাড়ায় মূল্য তালিকা প্রদর্শন না করায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা এলজিইডির আরবিআরপি প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ মুলাদীতে আ.লীগের মনোনয়ন চান শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান খ্যাত কামরুল আহসান চরফ্যাশনে জন্মবিরতি করণের নামে লাখ লাখ টাকা লোপাট!
Dr. Ali Hasan
Dr. Jahidul Islam
একটি সরকারি ঘর চান ভূমিহীন মাখন রবিদাস

একটি সরকারি ঘর চান ভূমিহীন মাখন রবিদাস

ওবায়দুর রহমান, (ময়মনসিংহ) গৌরীপুর॥
ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার মাওহা ইউনিয়নের বাসিন্দা মাখন দাস ভূমিহীন। পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাসের জন্য একটি সরকারি ঘর চান তিনি।

নেত্রকোনা জেলার সদর উপজেলার লক্ষীগঞ্জ ইউনিয়নের মৃত নৃগেন্দ্র চন্দ্র রবিদাসের ছেলে। তার বাবারও কোন সহায়-সম্পত্তি ছিল না। তারা লক্ষীগঞ্জ ইউনিয়নের লক্ষীগঞ্জ বাজারের পাশে অন্যের জায়গায় একটা ছাপড়া ঘরে বসবাস করতেন। তার বাবা নৃগেন্দ্র চন্দ্র রবিদাস মারা যাওয়ার পর কোন সম্পত্তি না থাকায় সেখান থেকে দীর্ঘদিন পূর্বে ছোট মাখন চলে আসেন ময়মনসিংহ জেলার গৌরীপুর উপজেলার মাওহা ইউনিয়নে নিজ মাওহা গ্রামে। এ গ্রামের নদীর পাড়ে মোস্তফা ফকিরের জমিতে আশ্রয় মিলে মাখন চন্দ্র রবিদাসের। এ জায়গায়ই তিনি বড় হয়েছেন, করেছেন বিবাহ। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে বাসবাস শুরু করেন তিনি।

দীর্ঘদিন যাবত বসবাসের জন্যে নিজ মাওহা গ্রামে ভোটার হয়েছেন। কোন এক অজ্ঞাত কারণে বিয়ের কিছুদিন পর সেই আশ্রিত জায়গা ছাড়তে হয় মাখনকে। অন্যকোন উপায়ন্তর না পেয়ে পাশের গ্রাম মাওহা নয়ানগর ধর্নাঢ্য ব্যক্তি কামাল উদ্দিন মাস্টারের কাছে ছুটে যান। অনেক অনুনয়-বিনয়ের পর কামাল উদ্দিন মাস্টার তার বাড়ির পিছনে জিটাই নদীর ধারের নির্জন জঙ্গলে একটি ঘর নির্মাণ করে থাকার জায়গা দেন। সেখানে মাখন তাদের খেয়াঘাটে নৌকা চালায়। এই জায়গায় কোন মানুষ বসবাস করার কথা নয় কিন্তু তার কোন উপায় না থাকায় গ্রামের মানুষদের সহযোগিতায় সেই জঙ্গল পরিস্কার করে ও বিভিন্ন লোকের আর্থিক সহযোগিতা নিয়ে ঘর নির্মান করে পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস শুরু করেন তিনি। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় কোনরকমে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে দিনাতিপাত করে।

কায়ক্লেশে এক বেলার খাবার জোগাইতে পারলেও অন্য বেলায় থাকতে হয় অনাহারে। এ অবস্থার মধ্যে থাকার যে ঘরটি রয়েছে তাও জরাজীর্ণ। ভাঙ্গা টিন, প্লাষ্টিকের বস্তা ও খড় দিয়ে রকম ভাবে তার থাকার ঘরের চারপাশ ঘিরে দিনযাপন করছেন তিনি। মাখনের স্ত্রী অনিমা রবিদাস জানান আমার স্বামী খেয়া ঘাঠের মাঝি, বর্ষা এলে নৌকা দিয়ে মানুষ পারাপার করে আর জুতা সেলাই করে সংসার চালায়। আজ পর্যন্ত আমাদের ভাগ্যে জুটেনি সরকারি কোন সুযোগ সুবিধা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে গেলেও তারা কোনরকম সাহায্য-সহযোগিতা করেনা। এহন হুনছি শেখ হাসিনার সরকার নাহি ভূমিহীনদের ঘর দিতাছে আমরা যদি একটা ঘর পাইতাম, তাহলে আজীবন শেখ হাসিনার জন্য দোয়া করতাম।

দ্রুত নিউজ পেতে নিচের লাইক বাটনে ক্লিক করে সি ফাস্ট করে রাখুন
নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

royal city hospital



© All rights reserved © 2019 rupalibarta.com
Developed By Next Barisal