Menu
Menu

বরিশালে স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ ৪৯ জনের করোনা শনাক্ত

Share on facebook
Share on google
Share on twitter

রূপালী ডেস্ক।।
বরিশাল সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, শেবাচিম হাসপাতালের সেবিকা, কর্মচারী, পুলিশ সদস্যসহ ৪৯ জনের শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে। বরিশালে একদিনে সবচেয়ে বেশি করোনা শনাক্ত রোগীর সংখ্য এটিই।

শনিবার (৩০ মে) রাত ১১টায় বরিশাল জেলা প্রশাসনের মিডিয়া সেল থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছ। এর আগে শুক্রবার ২২ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছিল। শুক্রবারের চেয়ে শনিবার দ্বিগুণেরও বেশি করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এনিয়ে বরিশাল জেলায় আক্রন্তর সংখ্যা দাড়িয়েছে ২৭৯ জনে।

আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের দুই সেবিকা, দুইজন স্টাফ, শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজের স্টাফ একজন, বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়ের ড্রাইভার একজন। মেট্রোপলিটন পুলিশে কার্মরত তিন পুলিশ সদস্য, জেলা পুলিশের দুই সদস্যও রয়েছেন। এছাড়াও নগরীর রুপাতলি এলাকার চারজন, পুলিশ লাইনস এলাকায় তিনজন, ব্রাউন কম্পাউন্ড এলাকায় তিনজন, বটতলা এলাকায় তিনজন, ভাটিখানা এলাকায় তিনজন, কাউনিয়া এলাকায় দুইজন, চকবাজার এলাকায় দুইজন রয়েছেন।

নাজির মহল্লা, নথুল্লাবাদ, আলেকান্দা, নিউ সার্কুলার রোড, সাগরদী, আমানতগঞ্জ, টাউন হল এলাকা, নতুন বাজার, তিলক কলাডেমা, কাঠপট্টি, চাঁদমারি, পদ্মাবতি রোড এলাকায় একজন করে ১২ জন করোনায় আক্রান্ত। সদর উপজেলার সাহেবেরহাট, শায়েস্তাবাদ ও চরমোনাই এলাকার একজন করে মোট তিনজন, বাকেরগঞ্জ উপজেলায় একজন এবং বানারীপাড়া উপজেলায় একজন করোনা আক্রন্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে পাঁচ বছরের শিশু থেকে শুরু করে ৭০ বছরের বৃদ্ধ রয়েছেন।

বরিশাল জেলা প্রশাসক এস.এম. অজিয়র রহমান জানান, রিপোর্ট পাওয়ার পর পরই ওই ৪৯ জন ব্যক্তির অবস্থান অনুযায়ী তাদের বাড়ি ও অবস্থানস্থল লকডাউন করা হয়েছে। এছাড়া তাদের আশপাশের বসবাসের অবস্থান নিশ্চিত করে লকডাউন করার প্রক্রিয়া চলছে। পাশাপাশি তাদের অবস্থান এবং কোন কোন স্থানে যাতায়াত ও কাদের সংস্পর্শে ছিলেন তা চিহ্নিত করার কাজ চলছে। সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা অনুযায়ী করোনা আক্রন্ত রোগীর সংখ্যা দিক থেকে সিটি করপোরেশন এলাকায় সবচেয়ে বেশি ১৬৯ জন। এর পরের অবস্থানে রয়েছে বাবুগঞ্জ ১২ জন, উজিরপুর ১১ জন, বাকেরগঞ্জে ১০ জন, সদর উপজেলা সাতজন, মেহেন্দীগঞ্জে ছয়জন, বানারীপাড়ায় পাঁচজন, হিজলা চারজন, মুলাদী চারজন, আগৈলঝাড়া তিনজন এবং গৌরনদীতে তিনজন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে।

সর্বশেষ