Menu
Menu

মায়োর্কার জালে মেসিদের চার গোল

Share on facebook
Share on google
Share on twitter

স্পোর্টস ডেস্ক।।

মৌসুমে নতুন করে শুরুটা এর চেয়ে আর ভালো হতে পারতো না বার্সেলোনার। রিয়াল মায়োর্কার জালে ৪ গোল। নিজেদের জাল অক্ষত। শনিবার (১৩ জুন) রাতের দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে কৃত্রিম দর্শক-কোলাহলের মধ্যে জব ওয়েল ডান!

সবকিছু ঠিকঠাক কখন হয় বার্সেলোনার, সে সম্পর্কে সবারই ধারণা আছে। যখন লিওনেল মেসি উজ্জ্বল আভা ছড়ান! মেসি যোগ করা সময়ের তৃতীয় মিনিটে তার প্রথম গোলটি পেলেন। এর আগে করিয়েছেন দুটি গোল। দুই সংখ্যাটা বসেছে জর্ডি আলবার নামের পাশেও। মেসির পাস থেকে বার্সেলোর তৃতীয় গোলটা করেছেন ৭৯ মিনিটে। আর দুই মিনিটের মধ্যেই ভিদালের গোলটি বানিয়ে দিয়েছেন বার্সেলোনার লেফটব্যাক। তাহলে চ্যাম্পিয়নদের হয়ে আরেকটি গোল করেছেন কে? এখানেই চমক। গোল করেছেন ব্রাথওয়েট। চোটের কাছে সুয়ারেজেকে হারিয়ে ফেলার পর লেগানেস থেকে যাকে আনা হয়েছিল আপৎকালীন উদ্ধার হিসেবে।

৬৫ সেকেন্ডেই গোলের খাতা খুলে ফেলে বার্সেলোনা। যেটি হতে পারতো ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ংয়ের আত্মঘাতী গোল, সেখান থেকেই জর্ডি আলবার ক্রসে আর্তুরো ভিদালের হেডে গোল। তারপর ৩৭ মিনিটে লিওনেল মেসির হেডে দেওয়া পাসে বার্সার হয়ে প্রথম গোল করলেন ব্রাথওয়েট। ২-০ গোলে এগিয়ে বিরতিতে যায় বার্সেলোনা। খুবই স্বস্তির ব্যাপার। কিন্তু কাতালান দলটিকে এ মৌসুমে যে সমস্যা প্রতিপক্ষের মাঠে ভোগাচ্ছে, সেই রক্ষণ দুর্বলতা ফুটে ওঠে দ্বিতীয়ার্ধে। বারকয়েক হড়বড় করে সেটি অবশ্য কাটিয়ে ওঠে তারা। দ্বিতীয়ার্ধের অর্ধেকটা যেতে মেসির সৌজন্যেই আবার নিজেদের গুছিয়ে নেয় বার্সেলোনা।

ঠিক তিনমাস আগে যেখানে শেষ করেছিল, তার চেয়ে অনেক বেশি ধারালো লেগেছে মেসির দলকে। বিশেষ করে মেসিকে। ফেসবুক লাইভে যে মন্তব্যের মন্তাজ ভেসে আসছিল, তাতে অনেকেই বলেছেন মেসি যেন সেই ২০০৯ সালের মতো চনমনে। বেশি সজীব। তিনমাসে বাসায় তাহলে ফিটনেস নিয়ে এতটাই কাজ করেছিলেন আর্জেন্টাইন চ্যাম্পিয়ন! সারা মাঠ দৌড়ে খেলছিলেন। বার দুই খুব কাছে গিয়েও গোল পাননি। তখন মনে হচ্ছিল, মেসির গোল না পাওয়াটা বড় অন্যায়। আর ঠিক তখনই লুইস সুয়ারেজের পাসে দুর্দান্ত গোল, যা লা লিগার সর্বোচ্চ গোলদাতার ২০তম! কে ভেবেছিল ফেব্রুয়ারিতে অস্ত্রোপচারের টেবিলে ছুরির নিচে যাওয়া উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারকে মৌসুমের বাকি অংশে পাওয়া যাবে। করোনাভাইরাস এই একটা ভালো কাজ অন্তত করেছে। সুয়ারেজকে বার্সার কাছে ফিরিয়ে দিয়েছে ভালোভাবেই। এ ম্যাচে বার্সা আরেকটি তৃপ্তির জায়গা খুঁজে পেয়েছে। সে হলো মেসির সঙ্গে ব্রাথওয়েটের বোঝাপড়া। আলবা, মেসি আর ব্রাথওয়েট- দুর্দান্ত একটা সমন্বয় গড়ে উঠেছে বার্সার অ্যাটাকিং থার্ডে।

আর এ কারণেই মায়োর্কা বেশ কিছু মুহূর্ত তৈরি করেও পেরে ওঠেনি। পরিসংখ্যান অবশ্য বলবে ওরা তো ভয়ঙ্করই ছিল। প্রশ্নটা এখানেই। মেসি ম্যাজিক সতীর্থদের সঙ্গে ঠিকঠাক সঙ্গত করতে পারলে প্রতিপক্ষ পেরে ওঠে না।

৪-০ গোলের বিশাল জয় ২৮ ম্যাচ শেষে বার্সেলোনার হাতে জমালো ৬১ পয়েন্ট। প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে ব্যবধান পাঁচ পয়েন্টের। অবশ্য রবিবারই এটি ঘুচিয়ে ফেলার সুযোগ পাবে জিদানের দল, যখন ভালদেবেবাসে মুখোমুখি হবে এইবারের।

সর্বশেষ